Home  /  2021  /  জুন

সেন্টার টেবিল: কোন ঘরে কেমন কথায় আছে, “প্রথমে দর্শনধারী, তারপর গুণবিচারী।” বাসায় প্রবেশের পর প্রথম যে স্থানটির দর্শন হয়, তা হলো বসার ঘর। তাই এই ঘরের প্রতিটি বস্তু এমনকি প্রতিটি কোণায় আপনার সুরুচি ও পটুতার ছাপ থাকা অপরিহার্য বৈকি!  এক্ষেত্রে ফার্নিচারের ভূমিকা

"আমার ঘরের পর্দাটা একদম হালকা রঙের হবে। সেই পর্দা গলে রোদ ঢুকবে। আর বিছানায় এসে পড়বে তার নরম আলো! ঘুম ভেঙেই (বেডসাইড টেবিল) বেডসাইড টেবিলে রাখা আমার সবচেয়ে প্রিয় ছবিটি দেখতে পাবো।"  বাসার সাজসজ্জা নিয়ে আমাদের জল্পনা-কল্পনার অন্ত নেই! আর সেই

কনফারেন্স টেবিল কি একটি মিটিংকে সফল করতে পারে? বিজনেস মিটিংগুলোর সাফল্য যে শুধু আপনার স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং এবং নেগোসিয়েশনের ওপর নির্ভর করে, তা নয়। যে কনফারেন্স রুমে বসে মিটিং করছেন, তার প্রতিটি অনুষঙ্গের প্রভাব থাকে এই সাফল্যের পেছনে। একটি পরিপাটি কনফারেন্স রুম শ্রোতাদের

গানের শখ তো অনেকেরই থাকে, আবার অনেকেই এটাকে এতটাই ভালোবেসে ফেলে যে মিউজিককেই প্রফেশন হিসেবে নেয়। আজকাল অনেকেই শখ করে বাসায় একটা মিউজিক স্টুডিও করে। হোক তা শখের বশে বা প্রোফেশনাল কারণে। কারণ, অনেক সময় স্টুডিও তে ২৪ ঘণ্টাই থাকা

টি-ট্রলির আদ্যোপান্ত টি-ট্রলিকে ঠিক বাসার অপরিহার্য অনুষঙ্গ বলা চলে না। তবে একটি টি-ট্রলি যে নানাভাবে আপনার জীবনকে সহজ করবে, তাতেও কোনো সন্দেহের অবকাশ নেই! রোজকার চা-নাস্তার আয়োজন থেকে শুরু করে অতিথিদের জন্য মার্জিতভাবে খাবার পরিবেশন পর্যন্ত অসংখ্য কাজে আপনার সময় এবং

প্রতিদিন সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের মাঝে হাজার রকম আসবাব ব্যবহার করি আমরা। কোনো কোনো আসবাব কয়েকদিনেই হারিয়ে যায় আমাদের ঘর থেকে। সেসব জিনিসপত্রের কথা আমরা আলাদা করে মনেও রাখি না। কিন্তু ভারিক্কি ধরনের আসবাবপত্র বছরের পর বছর বহাল তবিয়তে নিজ জায়গা ধরে

আর সব থাকতে ফেব্রিক সোফাই কেন?  যেকোনো সোফার প্রথম শর্তই হলো কমফোর্ট। বসার সময় বডি পসচার ঠিক থাকছে কিনা সেটির পাশাপাশি আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কমফোর্ট ফ্যাক্টর হলো সোফায় বসে আপনার হাঁসফাঁস লাগছে কিনা। আর ডিজাইন এবং কুশনের রঙের ব্যাপার তো আছেই! এই দু’টি

''আমারে দু-দণ্ড শান্তি দিয়েছিলো নাটোরের বনলতা সেন'' শান্তি পেতে জীবনানন্দ দাশ হয়ত বনলতা সেন কে খুঁজে নিয়েছিলেন। কিন্তু যান্ত্রিকতার এ যুগে আমাদের সে সাধ্য কই? দিন শেষে তাই আমাদের ঘর, থাকার জায়গাটাই আমাদের বড্ড আপন। সবাই তাই চায় নিজের ঘরটা সুন্দর, গোছানো,

আমরা সবাই পরিপাটি হয়ে থাকতে, আশপাশ গোছানো দেখতে বড্ড ভালোবাসি, তাই না? বাসা ঠিকভাবে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখতে তাই আমাদের আয়োজনের কমতি নেই। কিন্তু ব্যস্ত এই জীবনে নিজের বাসাটি বাদেও যে আমাদের আরও একটি আপাতঃবাসস্থান রয়েছে, তার কথা মাথায় আছে কী? বলছি

অন্দরের সাজসজ্জা নিয়ে আমাদের কতই না চিন্তা! কিভাবে সাজাবো, কেমন ফার্নিচার কিনবো কিংবা চলতি ধারার মধ্যে নতুনত্বের সাথে নিজ ঘর কে কিভাবে আলাদা করে তুলবো- এমন কতশত প্রশ্নই আমাদের মনে ঘুরপাক খায়। তবে একটু বুদ্ধি আর নিজস্ব সৃজনশীলতাকে কাজে লাগিয়ে