Home  /  অফিস

আপনি একজন অফিস কর্মী বা একজন বিশেষ ব্যক্তিত্বের অধিকারী হোন না কেন, আপনি চেয়ারে বসে অনেক সময় কাটাচ্ছেন। এবং যদি চেয়ারটি আরামদায়ক না হয়, তাহলে দীর্ঘ সময়ের জন্য একটি অস্বস্তিকর চেয়ারে বসে থাকার পরে যে পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হবে তা

প্রতিটি কাজ আরো বেশি স্বাচ্ছন্দময় করতে উপযুক্ত আসবাবপত্র গুলো আপনার সবচেয়ে কাজে আসে। আপনার কম্পিউটার এর জন্য একটি উপযুক্ত ও মানসম্মত টেবিল আপনার জন্য আরো বেশি যুক্তিসঙ্গত হবে। তাই কম্পিউটার এর জন্য একটি টেকসই ও দীর্ঘস্থায়ী টেবিল আপনার কাম্য। একটি বিখ্যাত

একটি মনোরম অফিস পরিবেশ তাই যা অসাধারণ ও আরামদায়ক একইসাথে আরো বেশি ব্যবহারিক কাঠের চেয়ার ডিজাইন এর সাথে সজ্জিত। HATIL ফার্নিচার শিল্পে সর্বশ্রেষ্ঠ পণ্য তৈরি করার জন্য এবং ক্লায়েন্টদের সবচেয়ে আপ-টু-ডেট ডিজাইন অফার করার জন্য সর্বদাই প্রশংসা অর্জন করে। আড়ম্বরপূর্ণ

একটি অফিস যা কিছু দক্ষ কর্মীদের দক্ষতার প্রতিফলনের স্থান যেখানে চারদিকের পরিবেশ দ্বারা তাদের প্রতিটি কর্মকান্ড প্রভাবিত। তাদের বসার চেয়ার ডিজাইন গুলো থেকে শুরু করে প্রতিটি আসবাবপত্র যখন তাদের জন্য অনেক বেশি ব্যবহারিক হয় এটি তাদের কাজের গুনমানকে উন্নত করে।

একটি আদর্শ অফিস সেটি যেখানে কর্মীরা কাজ করার পাশাপাশি প্রশান্তি খুঁজে পায়, এবং পরবর্তী দিন গুলোতে আরো মনোযোগের সাথে কাজ করতে নিজেকে উৎসাহিত করে। একটি রুচিশীল পরিবেশ যা মূলত চারপাশের আসবাবপত্রের সাহায্যে তৈরী হয়। তাই উচ্চমানের আসবাবপত্র প্রস্তুতকারকদের ওপর আপনি বিশ্বাস

ওয়ার্কস্টেশন যেকোনো অফিসেরই একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। বেশির ভাগ কর্মী এখানে বসেই কাজ করেন। ওয়ার্কস্টেশনকে তাই এক অর্থে অফিসের প্রাণই বলা যেতে পারে। যেখানে বসে কাজ করছেন, সে জায়গাটাই যদি কর্মীদের মনমতো না হয়, তাদের স্বাচ্ছন্দ্য প্রদান না করতে পারে, তবে

আধুনিক যুগ আমাদের অনেক কিছুই দিয়েছে সত্যি, তবে বৈপরীত্যও যে নেই, তা নয়। এই যেমন, সময়ের সাথে সভ্যতা যত আধুনিক হয়েছে, তত বেড়েছে কর্মজীবী মানুষের কাজের চাপ। সহস্রাধিক ফাইলের পাহাড় এবং ফ্যানের পাখার ঘর্ঘর শব্দের মাঝে চুপচাপ নয়টা-ছয়টা অফিস করে

নতুন প্রজন্মের উদ্যোক্তাদের মাঝে দিন দিন বাড়ছে কো-ওয়ার্কিং স্পেস খোঁজার প্রবণতা। খুঁজবে না-ইবা কেন! নতুন কোম্পানি খুলে বসার মতো সাহস উদ্যোক্তাদের থাকলেও অনেক সময়েই শুরুতেই পুরোদস্তুর অফিস ভাড়া নেওয়ার মতো সামর্থ্য থাকে না। তবে ঘরে বসে তো আর কোম্পানি চালানো

কাজ হোক বা ব্যক্তিগত জীবন౼সব ক্ষেত্রেই  আশপাশের পরিবেশ আমাদের ব্যবহারের ওপর প্রভাব ফেলে। অফিস এমন এক জায়গা যেখানে ইচ্ছা-অনিচ্ছানির্বিশেষে দিনের বড় একটা  অংশ কাটিয়ে দিতে হয়। ৮-৯ ঘণ্টা যেখানে কাটাচ্ছি প্রতিদিন, সেখানের পরিবেশটা অবশ্যই ভালো হওয়া চাই। শুধু মনের শান্তিই 

গেটিসবার্গ কলেজের একটি গবেষণায় দেখা যায় , আমাদের জীবনের এক-তৃতীয়াংশই  কাটে কর্মক্ষেত্রে। সপ্তাহের ৫ দিন , ৭-৮ ঘণ্টা  খুব সহজেই চলে যায় অফিসের পেছনে। কাজের চাপে অনেকেরই হয়তো সারা দিন কাটাতে হয় নিজের ডেস্কে। তাই মানসিক প্রশান্তি নিশ্চিত করতে আর