Home  /  সাজসজ্জা

ঘরে বয়োবৃদ্ধ কেউ থাকলে তাকে নিয়ে সবসময়ই বাড়তি চিন্তা থাকাটাই স্বাভাবিক। তার খাওয়াদাওয়া, ঘুম, সুস্থতা সর্বোপরি তার জন্য স্বস্তিদায়ক একটি পরিবেশ সৃষ্টিতে মনোযোগ পরিবারের সকলেরই। সেই মনোযোগের কতটা জুড়ে আছে ফার্নিচারের ভাবনা?   ঘরে বাড়তি ফার্নিচার এড়ানো উচিত পরিবারের প্রবীণ বা বয়োবৃদ্ধ সদস্যরা

আমরা ছোটবেলা থেকে শুনে এসেছি, প্রিয়বন্ধুটি আমাদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারে, সরে যেতে পারে দূরে কিন্তু বই কখনো এমন করবে না। বরং থাকবে বিশ্বস্ত বন্ধু হয়ে। বই পড়ে শুধু যে জ্ঞানের সীমানাই বাড়ানো যায় তা নয়, আধুনিক বিশ্বের চিম্তাধারার সাথে

কখনো ভেবেছেন কি কেন পড়ার টেবিলে মন বসে না? কেন এতো সুন্দর, বড় কক্ষে লেখাপড়ার মতো জরুরি কাজ অবহেলা করতে ইচ্ছে করে? হয়তো বা আপনি ভাবছেন যে দোষটি পুরোপুরি আপনার। তবে, ভেবে দেখুন, বিষয়টি কি তাই? নাকি কিছু হলেও, সমস্যাটি আপনার

ছোট ছোট কিছু আনন্দময় মুহূর্তকে ঘিরে আমরা সাজিয়ে তুলি আমাদের স্মৃতির পাতা, যেখানে কখনো থাকে মায়ের সাথে বায়না করে টেবিলের নিয়ে লুকিয়ে থাকা, আর কখনো থাকে বসার ঘরে বিরাট সোফায় বসে মজাদার সব গল্প আর আড্ডা। আর এইগুলোর সাক্ষী হয়ে

যেহেতু আমরা আমাদের বাড়ির ভিতরে অনেক সময় ব্যয় করি, তাই আলোকে অগ্রাধিকার দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়ায়। এছাড়াও, নান্দনিকতার বাইরে, ন্যূনতম প্রাকৃতিক আলো সহ স্থানগুলিও আপনার মেজাজকে প্রভাবিত করতে পারে৷ দিনের আলোর এক্সপোজার আমাদের সুস্থতা এবং মেজাজের উন্নতির সাথে যুক্ত। বিশেষ করে

ঘর গোছানো নিয়ে অত্যন্ত সতর্ক থাকেন আফরিন। হালফ্যাশনের ট্রেন্ডগুলোর সাথে তাল মিলিয়ে চলার চেষ্টা করেন সব সময়। এমনকি মৌসুমি রঙের সাথে মিলিয়ে পরিবর্তন করেন ঘরের রংগুলোও। বসন্ত, গ্রীষ্ম পার করে শীতকালে চলে এল। লেপ-কাঁথা-কম্বল বের করে শোবার ঘরগুলোকে যেমন প্রস্তুত

দেখতে দেখতে চলে এল শীতকাল। শীতের চাদরে ধীরে ধীরে জড়িয়ে পড়ছে আমাদের শহরটা। বছর ঘুরে ধুলো জমানো ট্রাঙ্কগুলো থেকে বের করা লাগছে সোয়েটার, মাফলার, জ্যাকেট, লেপ-কাঁথা আরও কত কী। নিজেদের কাপড়ে পরিবর্তন আনার সাথে সাথে ঘরের সাজগোজও একটু আরামদায়ক করা

গৃহসজ্জায় উজ্জ্বল রঙের ব্যবহার এখনকার নতুন ট্রেন্ড। বোহেমিয়ান ভাবধারায় ঘর সাজাতে হলে উজ্জ্বল, অপ্রত্যাশিত রং একেবারেই অনিবার্য। কিন্তু শুধু হলুদ বা কমলার মতো উজ্জ্বল রংই ঘরে থাকলে তা দেখতে বেশ ভারসাম্যহীন ও অমানানসই লাগবে। চকচকে উজ্জ্বল রঙের সাথে সমতা বজায়

ইকরি ও মিকরি দুই বোন। দুজনের মাঝে বয়সের তফাত খুব বেশি না। তাই বলেই হয়তো তাদের মধ্যে মিলের চেয়ে অমিলই বেশি। ইকরির পাহাড় পছন্দ, তো আরেক দিকে মিকরির প্রিয় সমুদ্র। আবার শান্ত স্বভাবের ইকরির ভালো লাগে বই পড়তে আর চঞ্চল